2018-01-31 12:52:38p

দিনে রাতে সমানতালে অবৈধভাবে পাহাড় কাটছে পাহাড় খেকোরা

বান্দরবান প্রতিনিধি: ২০১৭ সালে বান্দরবানে পাহাড় ধসে মাড়া গেছে ১৭ জন।  বিভিন্ন এলাকায় পাহাড় ধসে ফসলি ও আবাদি জমি নষ্ট হয়েছে কয়েকশ একর। এর পর ও থেমে নেয় পাহাড় কাটা। বন ও পরিবেশ রক্ষার দায়িত্বে যারা নিয়োজিত আছেন তারাও নিরব,  ফলপ্রসূ কোন ভ’মিকা দেখা যাচ্ছে না।
বান্দরবান শহরে কালাঘাটা,বালাঘাটা,হাফেজ ঘোনা,উজিপাড়া,লাঙ্গে পাড়া ,লিমু ঝিড়ি পাড়া,ক্যচিং পাড়া এসব এলাকায় ছরিয়ে পড়েছে পাহাড় কাটা।  স্কেভেটর এবং দিনমজুর দিয়ে দিনে রাত্রে সমানতালে পাহাড় কেটে যাচ্ছে পাহাড় খেকোরা। প্রশাসনকে তোয়াক্কা না করে পাহাড় কেটে পাহাড়ে উপর তৈরী করা হচ্ছে বসত ঘর নির্মাণ। অবৈধভাবে যারা পাহাড় কাটচ্ছে  তাদের নেই কোন বৈধ কাগজ। সব কিছু চলছে গায়ের জোড়ে বা টাকার জোড়ে। এভাবে চলতে থাকলে গত বছর চেয়ে এবারে পাহাড় ধসে মৃত্যু সংখ্যা  বাড়তে পারে আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী।
নাম প্রকাশের অনিছুক পাহাড় খেকো  বলেন, আমাদের কোন বৈধ কাগজ পত্র লাগে না। আমরা সব কিছু ম্যানেজ করে চলি। উন্নয়ন করতে গেলে টুক টাক কিছু পাহাড় কাটতে হবে। পাহাড় থেকে যে মাটি গুলো বেড় হয়,সেগুলো প্রতি ট্রাক ১,২০০ টাকা হতে ১,৫০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করি।
বান্দরবান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার বলেন, পাহাড় কাটা সম্পুর্ণ বেআইনি এবং অবৈধ। পাহাড় কাটার খবর পেলেই মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে জরিমানা করি এবং পাহাড় কাটা সরঞ্জাম জব্দ করি।  যারা অবৈধভাবে পাহাড় কাটছে তাদের কোন ছাড় নেই।  এর সাথে সাধারণ জনগণকে ও সচেতন হতে হবে।

আইএনবি:জসাইউ/এমএম